হরতালের দিনে পতনে শেয়ারবাজার

0

 

বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর ডাকা হরতালের দিন আজ রবিবার দেশের শেয়ারবাজারে দরপতন হয়েছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সবকটি মূল্যসূচক কমার পাশাপাশি দাম কমার তালিকায় নাম লিখিয়েছে বেশি সংখ্যক প্রতিষ্ঠান। অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) দাম কমার তালিকায় বেশি সংখ্যক প্রতিষ্ঠান থাকলেও মূল্যসূচক বেড়েছে।

এর আগে ২৮ অক্টোবর ঘিরে রাজনৈতিক অস্থিরতার শঙ্কায় গত সপ্তাহে শেয়ারবাজারে দরপতন হয়। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার সবকটি মূল্যসূচক কমার পাশাপাশি লেনদেন কমে তিনশ কোটি টাকার ঘরে চলে আসে।

আগে থেকেই মানুষের মনে রাজনৈতিক সংঘাতের যে শঙ্কা দানা বেঁধে ছিল তা ২৮ অক্টোবর বাস্তবে রূপ নেয়। বিএনপির সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও আওয়ামী লীগ কর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এতে একজন পুলিশ সদস্যসহ অন্তত দু’জন মারা যাওয়ার সংবাদ পাওয়া গেছে।

সমাবেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষের পর আজ দেশব্যাপী হরতালের ডাক দেয় বিএনপি। পরবর্তীতে জামায়াতে ইসলামীও একই সময়ে হরতালের ডাক দেয়। বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামের এই হরতালের মধ্যে শেয়ারবাজারের কার্যক্রম ছিল স্বাভাবিক।

নির্ধারিত সময় অনুযায়ী সকাল ১০টা থেকে শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হয়। তবে লেনদেনের শুরুতেই শেয়াবাজারে দরপতনের আভাস পাওয়া যায়। লেনদেন শুরুর কয়েক মিনিটের মধ্যে দাম কমার তালিকায় নাম লেখায় বেশি সংখ্যক প্রতিষ্ঠান, যা দিনের লেনদেনের শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে।

তবে লেনদেনের শেষদিকে দরপতনের তালিকা থেকে বেরিয়ে আসে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। ফলে বড় পতনের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে শেয়ারবাজার। এরপরও ডিএসইতে যে কয়টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে, কমেছে প্রায় তার দ্বিগুণের।

দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে সব খাত মিলে ৫৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৯১টির এবং ১৫০টির দাম অপরিবর্তিত।

এরপরও ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স দশমিক ৬০ পয়েন্ট কমে ৬ হাজার ২৭৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ আগের দিনের তুলনায় দশমিক ৬০ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৩৬১ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর বাছাই করা ভালো ৩০টি কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক আগের দিনের তুলনায় দশমিক ৫১ পয়েন্ট কমে ২ হাজার ১৩৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সবকটি মূল্যসূচক কমলেও ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে। দিনভর বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৪১৩ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৩৭৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা। সে হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৩৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা।

টাকার অঙ্কে বাজারটিতে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে জেমিনি সি ফুডের শেয়ার। কোম্পানিটির ৩৮ কোটি ৩৮ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ফু-ওয়াং ফুডের ২৩ কোটি ৬৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ২১ কোটি ৩৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে সি পার্ল বিচ রিসোর্ট।

এছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ দশ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- সমরিতা হাসপাতাল, সোনালী আঁশ, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, এমারেল্ড অয়েল, ইস্টার্ন হাউজিং, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ এবং মিরাকেল ইন্ডাস্ট্রিজ।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই বেড়েছে দশমিক ৪৬ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন অংশ নেওয়া ১২৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪০টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৩৯টির এবং ৪৮টির দাম অপরিবর্তিত। লেনদেন হয়েছে ৬২৩ কোটি ৫ লাখ টাকা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.